দাওয়াহ ইনস্টিটিউটের ঠিকানা

Logo

দ্বীনের দাওয়াত – কিছু প্রশ্ন কিছু বাস্তবতা

মুফতি যোবায়ের আহমেদ

সমস্ত প্রশংসা সেই মহান স্রষ্টার, যিনি জ্বিন ও মানব জাতিকে সৃষ্টি করেছেন শুধু
তাঁরই এবাদত করার জন্য। দরূদ ও সালাম বর্ষিত হোক শেষ নবী, বিশ্ব
মানবতার মুক্তির দূত হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ওপর।
পরিপূর্ণ রহমত নাজিল হোক সাহাবায়ে কেরাম ও আজ পর্যন্ত ইসলামের প্রচারপ্রতিষ্ঠার জন্য জীবন উৎসর্গ ও ত্যাগে মহিমান্বিত মহামনীষীদের প্রতি।


প্রিয় পাঠক-পাঠিকা! ২০০৩ সালে দারুল উলূম দেওবন্দে (ভারত) ভর্তি
পরীক্ষা শেষে ইচ্ছে হলো – ফলাফল বের হওয়ার আগে আমাদের বুযুর্গদের
স্মৃতিবিজড়িত ঐতিহাসিক স্থানসমূহ দেখে আসি। সেই নিয়তেই প্রথমে নির্বাচন
করলাম মুজাফফরনগর জেলার খাতুয়াল্লি থানার ফুলাত নামক সুপ্রসিদ্ধ গ্রামটি।
সেখানে রয়েছে শাহ ওলিউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভী ও শাহ ইসমাঈল শহীদ
রহ. -এর জন্মভূমি। আরও রয়েছে দেখার মতো বহু কিছু।


সেখানে গিয়ে একটি খানকায় অবস্থানকালে একজনের সঙ্গে দেখা হলো।
তাঁর সাথে কিছুক্ষণ আলাপ হওয়ায় আমার কেবলই মনে হচ্ছিল, এমন মানুষ
ইতোপূর্বে কখনও দেখিনি। যেমন তাঁর নূরানী চেহারা, তেমনি তাঁর সুন্নতের
এত্তেবা। তাঁর অন্তরের একরাশ বেদনা এবং হৃদয়ের তপ্তজ্বালা আমাকে ছুঁয়ে
গেল। তাঁর চিন্তা-চেতনা আমাকে ভাবাতুর করে তুলল। পরে জানতে পারলাম,
তিনি হলেন একজন বড় দা‘য়ী মুফাক্কিরে ইসলাম হযরত মাওলানা আবুল হাসান
আলী নদভী রহ. ও শায়খুল হাদিস যাকারিয়া রহ.-এর বিশিষ্ট খলিফা, হযরত
মাওলানা কালিম সিদ্দিকী। তাঁর মাধ্যমে এপর্যন্ত লক্ষাধিক অমুসলিম ইসলামের
সুশীতল ছায়াতলে আশ্রয় গ্রহণ করেছেন। তাঁকে আমার খুবই পছন্দ হলো। মনে
মনে এমন একজন শায়খকেই সন্ধান করছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ! আল্লাহ
আমাকে মিলিয়ে দিলেন। পরবর্তী সময়ে তাঁর সাথে এসলাহী সম্পর্ক কায়েম
করলাম এবং যাওয়া-আসাও চলতে থাকলো। সেসময় হজরত বেশ কিছু বই
হাদিয়া দেন, তার মধ্যে – ‘দ্বীনের দাওয়াত কিছু প্রশ্নকিছু বাস্তবতা’ বইটিও ছিল,
দীর্ঘ দিন থেকে বইটির অনুবাদ করব বলে নিয়ত করি কিন্তু হয়ে উঠেনি।
আলহামদুলিল্লাহ এখন পাঠকদের সামনে বইটি পেশ করা হলো।

বইটি প্রকাশের জন্য অনেকেই সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন। আল্লাহ
তাআলা সকলের এখলাস ও সৎ নিয়তকে কবুল করে, দীনের দা’য়ী হিসেবে কাজ
করার তৌফিক দান করুন।


সেই সাথে পাঠকদের খেদমতে বিনীত আরজ, মানুষ হিসেবে ভুল থাকাটাই
স্বাভাবিক। তাই আপনাদের চোখে কোনো ভুল দৃষ্টিগোচর হলে জানালে খুশি
হবো এবং দ্বিতীয় সংস্করণে ঠিক করে নেবো ইনশাআল্লাহ। পরিশেষে আল্লাহর
কাছে দুআ করি, আল্লাহ যেন আমাদের প্রত্যেককে দা’য়ী হিসেবে কবুল করেন।

আমীন।

অনলাইনে বইটি পড়ুনঃ

দ্বীনের-দাওয়াত-কিছু-প্রশ্ন-কিছু-বাস্তবতা